28.3 C
Agartala
Saturday, April 13, 2024
- Advertisemet -spot_img

জেলা তৈরির ১০ বছর পর হল রিক্রিয়েশন ক্লাব

শ্যামলী ত্রিপুরা, বিলোনীয়া প্রতিনিধি:

২০১২ সালে রাজ্যের অষ্টম জেলা হিসেবে স্বীকৃতি পায় দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলা। যার জেলা সদর বিলোনিয়া। গুটি গুটি পায়ে দশ বছর পার করে ১১ বছর পদার্পণ করলো এই জেলা। বর্তমানে জেলায় প্রশাসনিক কলেবর অনেকটাই বৃদ্ধি হয়েছে। কর্মীর সংখ্যা ও বেড়েছে অনেক। দীর্ঘ ১০ বছর পর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের কথা মাথায় রেখে তৈরি হয়েছে ডিএম অফিস এমপ্লয়িজ রিক্রিয়েশন ক্লাব। ডিএম অফিসে আজ এই এমপ্লয়িজ রিক্রিয়েশন ক্লাবের শুভ উদ্বোধন হয়। উদ্বোধন করেন দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলা পরিষদের সভাধিপতি কাকলি দাস দত্ত এবং জেলাশাসক ও সমাহর্তা সাজু ওয়াহিদ এ। লক্ষ্য একটাই সমাজের বিভিন্ন অংশের মানুষের জন্য কাজ করা এবং সাংস্কৃতিক প্রতিভার বিকাশ ঘটানো। ১৩ জন কার্যকরী সদস্যবিশিষ্ট এই ক্লাবের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সিনিয়র ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সুধাংশু সরকার, সভাপতি অভিজিৎ দত্ত, সম্পাদক পুলক রঞ্জন পোদ্দার এবং কোষাধ্যক্ষ প্রিয়ব্রত বৈদ্য। এই এমপ্লয়িজ রিক্রিয়েশন ক্লাবের উদ্যোগে অফিস চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বকর্মা পূজা। আগামী দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে আজকের উদ্বোধনী দিনেই ক্লাবের পক্ষ থেকে লাউগাং মনোরমা শিশু নিকেতনের অনাথ শিশুদের হাতে পূজার বস্ত্র, ব্যাগ এবং চকলেট তুলে দেওয়া হয়। সন্ধ্যায় বিশ্বকর্মা পূজা উপলক্ষে ক্লাবের উদ্যোগে স্মরণিকা দক্ষিনির আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ হবে। তারপরে শুরু হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ক্লাবের উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্য তুলে ধরেন চেয়ারম্যান তথা সিনিয়র ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সুধাংশু সরকার। রিক্রিয়েশন ক্লাব এর উদ্বোধন শেষে জেলাশাসকের অফিসের কনফারেন্স হলে অনাথ শিশুদের নিয়ে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে জেলা পরিষদের সভাধিপতি কাকলি দাস দত্ত বলেন এই অনাথ শিশুদেরও মা বাবার মত ভালোবাসা দিতে হবে। যাতে একটি শিশু তাদের প্রাপ্য ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত না হয়। জেলাশাসক ও সমাহর্তা সাজু ওয়াহিদ ও অনুরূপভাবে কথা বলেন। তিনি বলেন অনাথ শিশুদের সঙ্গে থেকে তাদের মুখে হাসি ফুটাতে হবে। যাতে তারা বুঝতে না পারে তারা পিতা-মাতাহীন। এই শিশুদের পদচারণা আজকের অনুষ্ঠানকে প্রাণবন্ত করে তুলেছে।

Related Articles

যোগাযোগ রেখো

82,829ভক্তমত
834অনুগামিবৃন্দঅনুসরণ করা
1,320গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব

সাম্প্রতিক প্রবন্ধসমূহ