33 C
Agartala
Friday, April 12, 2024
- Advertisemet -spot_img

বাম কর্মী হত্যা মামলায় তিনদিনের পুলিশ রিমান্ডে বিজেপি প্রধান

শ্যামলী ত্রিপুরা প্রতিনিধি, খোয়াই ২০ ফেব্রুয়ারি।। বামকর্মী হত্যাকাণ্ডের সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগে ধৃত দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনদিনের পুলিশ রিমান্ডের আদেশ দিল মাননীয় আদালত ।
কল্যানপুর থানা এলাকার দ্বারিকাপুর গ্রামের বামকর্মী হত্যা কান্ডের মূল অভিযুক্ত ধৃত কৃষ্ণ কমল দাস ও সরোজ দাসকে পাঁচদিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আজ সোমবার খোয়াই প্রথম শ্রেণীর মাননীয় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (কোর্ট নং-২) পি জমাতিয়ার আদালতে হাজির করে কল্যানপুর থানার পুলিশ। যে কাঠের ফাইল/লোহার রড দিয়ে দিলীপ শুক্ল দাস কে আঘাত করা হয়েছিল তাহা এখনো উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ । মামলার তদন্তকারী অফিসারের দেওয়া তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে মাননীয় আদালত বামকর্মী হত্যা কান্ডের সাথে যুক্ত দুই অভিযুক্তকে তিনদিনের তিনদিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করে। একথা জানিয়েছেন সরকার পক্ষে আইনজিবি অভিজিৎ ভট্টাচার্য। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ধৃত কৃষ্ণ কমল দাস ও সরোজ দাসের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২/১২০ ধারায় মামলা রুজু করে কল্যাণপুর থানার পুলিশ। ঘটনার বিবরণে জানা যায় গত ১৮ ই ফেব্রয়ারি কল্যাণপুর থানার অন্তর্গত দারিকাপুর গীরিন্ডশীল পাড়া এলাকার, দারিকাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান কৃষ্ণকমল দাসের সাথে বামকর্মী দিলীপ শুক্ল দাসের কোন এক বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়। পরবর্তী সময় বাক বিতন্ডায় মারাত্মক উত্তেজনা দেখা দেয়। উত্তেজনা এতটাই বেড়ে যায় যে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতা হাতি শুরু হলে বিজেপি দলের গ্রাম প্রধান কৃষ্ণ কমল দাস বাম কর্মী দিলীপ শুক্ল দাসের মাথায় কাঠের পাইল দিয়ে আঘাত করে। এতে গুরুতর রক্তাক্ত হয় বাম কর্মী দিলীপ শুক্ল দাস, পরবর্তী সময় দিলীপ শুক্ল দাসের চিৎকার চেচামেচি শুনে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে ছুটে আসে এবং খোয়াই দমকল কর্মীদের খবর দিলে দমকলর্মীরা ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় দিলীপ শুক্ল দাসকে উদ্ধার করে খোয়াই জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসলে, খোয়াই জেলা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গে উন্নত চিকিৎসার জন্য আগরতলা জিবি হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তী সময় আগরতলা জিবি হাসপাতালে চিকিৎাধীন অবস্থায় দিলীপ শুক্ল দাসের মৃত্যু হয় । আর এই ঘটনার খবর এলাকায় চাউর হতেই এলাকায় উত্তেজনা বাড়তে থাকে বামকর্মীদের মধ্যে। ফলে ১৯শে ফেব্রুয়ারি সকালে নিজ বাড়ি থেকে বিজেপি দলের গ্রাম প্রধান কৃষ্ণ কমল দাসও তার সঙ্গী সরোজ দাসকে এই ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয় কল্যাণপুর থানার পুলিশ । আজ সোমবার ২০শে ফেব্রুয়ারি ধৃত দুজনকেই পাঁচদিনের পুলিশ রিমান্ড চেয়ে খোয়াই আদালতে পেশ করে কল্যাণপুর থানার পুলিশ। এদিকে সমস্ত তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে মাননীয় আদালত তিনদিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করে পুলিশ হাজতে পাঠিয়ে দেয়। তাদের দুজনকে আগামী ২২শে ফেব্রুয়ারি পুনরায় আদালতে হাজির করা হবে বলে জানিয়েছে সরকার পক্ষের আইনজীবী অভিজিৎ ভট্টাচার্য।

Related Articles

যোগাযোগ রেখো

82,829ভক্তমত
834অনুগামিবৃন্দঅনুসরণ করা
1,320গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব

সাম্প্রতিক প্রবন্ধসমূহ