25.4 C
Agartala
Saturday, April 13, 2024
- Advertisemet -spot_img

১টি ফ্যান ও লাইটের বিল ১০ হাজার !

শ্যামলী ত্রিপুরা প্রতিনিধি,কৈলাসহর ১৮ মে।। কৈলাসহরের সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা ও হয়রানি করা এবং ভুয়ো বিদ্যুৎ বিল প্রদান করা অব্যাহত রয়েছে বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানকারী বেসরকারি সংস্থা ‘সাই কম্পিউটার’ সংস্থার পক্ষ থেকে। আবারও ভুয়ো বিদ্যুৎ বিলের গুরুতর অভিযোগ উঠলো কৈলাসহরের বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানকারী বেসরকারি ‘সাই কম্পিউটার’ সংস্থার বিরুদ্ধে। উল্লেখ্য, বিগত তিন বছর ধরে কৈলাসহরের বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদান করে যাচ্ছে সাই কম্পিউটার সংস্থা। যেদিন থেকে সাই কম্পিউটার সংস্থা বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানের দায়িত্ব নিয়েছে সেদিন থেকেই কৈলাসহরের বিদ্যুৎ পরিসেবার মান একেবারেই তলানিতে যায়। অবিলম্বে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের ভুমিকা নেওয়া নাহলে জনরোষের শিকার হবে বেসরকারি বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানকারী ‘সাই কম্পিউটার’ সংস্থার কর্মীরা। উল্লেখ্য, কৈলাসহরের দেওরাছড়া এডিসি ভিলেজের চার নং ওয়ার্ডের কলাছড়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা হত দরিদ্র দিনমজুর শিমুল উরাং। অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল বি.পি.এল পরিবার ভুক্ত শিমুল উরাং নিজে দিনমজুরী করে এবং শিমুলের বড় ছেলে রাজমিস্ত্রীর কাজ করে পরিবার পরিচালনা করেন। দেওরাছড়া এডিসি ভিলেজের কলাছড়া গ্রামটি মুলত প্রত্যন্ত অঞ্চল হিসেবেই সবার কাছে পরিচিত। এই প্রত্যন্ত অঞ্চলের দেবস্থল চা বাগানের ভিতরে একটি মাত্র ঘরেই শিমুল উরাং-এর পরিবার বসবাস করে। শিমুল উরাং-এর টিনের ছাউনির একটি মাত্র ঘরটিও নিজেরাই তৈরি করেছে। শিমুল উরাং বিগত ত্রিশ বছর ধরে বৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছে। বেসরকারি বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানকারী সাই কম্পিউটার সংস্থা কৈলাসহরের বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানের দায়িত্ব পাবার পর থেকে বিগত সাড়ে তিন বছর ধরে গড়ে সাড়ে তিনশো টাকা থেকে সাড়ো পাঁচশো টাকা করে প্রতিমাসে শিমুল উরাং-এর বিদ্যুৎ বিল আসছে বলে শিমুল উরাং নিজেই জানান। হঠাৎ করে গত এপ্রিল মাসের বিদ্যুৎ বিল দশ হাজার টাকার উপর আসায় শিমুল উরাং হতভম্ব হয়ে যান। এত বিপুল পরিমান টাকা বিদ্যুৎ বিল আসার পর হতদরিদ্র শিমুল উরাং সাই কম্পিউটার সংস্থার কৈলাসহর শহরের অফিসে এসে সংস্থার আধিকারিকদের কাছে প্রশ্ন করেন যে, হঠাৎ করে এত বিপুল পরিমান টাকা বিদ্যুৎ বিল আসার কারণ কি? কিন্তু শিমুল উরাং-এর সাথে সাই কম্পিউটার সংস্থার আধিকারিকরা দুরব্যবহার করে। এমনকি শিমুল উরাং এই বিষয়ে সাই কম্পিউটার সংস্থার অফিসে চার পাঁচ দিন গিয়েছিলেন। কিন্তু যতদিনই সাই কম্পিউটার সংস্থার অফিসে গিয়েছেন ততোদিনই সাই কম্পিউটার সংস্থার আধিকারিকরা শিমুল উরাং-এর সাথে তীব্র দুরব্যবহার এবং অশ্লীল আচরণ করেছেন বলে শিমুল উরাং নিজেই জানান। অনেকটাই নিরুপায় হয়ে হতদরিদ্র শিমুল উরাং কৈলাসহর থানায় লিখিত ভাবে অভিযোগ জানালেও কৈলাসহর থানা কর্তৃপক্ষ শিমুল উরাং-এর অভিযোগ পত্র গ্রহণ করেনি। অসহায় নিরীহ দুঃস্থ শিমুল উরাং কোনো উপায় না পেয়ে কৈলাসহর প্রেসক্লাবের দারস্থ হন। কৈলাসহর প্রেসক্লাবের সদস্যরা শিমুল উরাংকে সাথে নিয়ে সাই কম্পিউটার সংস্থার অফিসে যাবার পর সংস্থার কর্মীরা নানান অজুহাত দেখিয়ে শিমুল উরাংকে অফিস থেকে বের করে দেন। শিমুল উরাং সাই কম্পিউটার সংস্থার বিরুদ্ধে আরও গুরুতর অভিযোগ করে বলেন যে, বিগত এক বছর পূর্বেও সাই কম্পিউটার সংস্থা শিমুল উরাং-এর কাছ ছয় হাজার টাকার বিদ্যুৎ বিল প্রদান করেছিলো। পরবর্তী সময়ে নানান তালবাহানা করে সাই কম্পিউটার সংস্থা শিমুল উরাং-এর কাছ থেকে সম্পুর্ন অন্যায় ভাবে কুড়ি হাজার টাকা আদায় করেছিলো। শিমুল উরাং আরও জানায় যে, কলাছড়া গ্রামের পাশে দেওরাছড়া গ্রামেও অনেকের ভুয়ো বিদ্যুৎ বিল দেওয়া হয়েছে শিমুল উরাং।কৈলাসহরের বিদ্যুৎ পরিসেবা প্রদানকারী বেসরকারি সাই কম্পিউটার সংস্থা যেভাবে ভুয়ো বিদ্যুৎ বিল কৈলাসহরের মানুষের কাছ থেকে আদায় করছে এরফলে কৈলাসহরে যেকোনো দিন যেকোনো মুহুর্তে সাই কম্পিউটার সংস্থার কর্মীরা জনরোষের শিকার হতে পারেন বলে বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা। শুধু তাই নয়, কৈলাসহরের জীতুরদীঘির পাড় এলাকায় অবস্থিত কৈলাসহরের বনেদী স্কুল হিসেবে পরিচিত প্রনবানন্দ বিদ্যামন্দিরের বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য সাই কম্পিউটার সংস্থার সাথে লিখিত ভাবে আবেদন করার পর সাই কম্পিউটার সংস্থার পক্ষ থেকে প্রনবানন্দ বিদ্যামন্দির কর্তৃপক্ষকে ত্রিশ হাজার টাকা জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়। সাই কম্পিউটার সংস্থার নির্দেশ মোতাবেক স্কুল কর্তৃপক্ষ চলতি বছরের দশ মার্চ সাই কম্পিউটার সংস্থার অফিসে ত্রিশ হাজার জমা দেয়। টাকা জমা দেওয়ার পর দুই মাস সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও আজ অব্দি সাই কম্পিউটার সংস্থা প্রনবানন্দ বিদ্যামন্দিরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়নি। প্রচন্ড গরমের মধ্যে বিগত দুই মাস ধরে বিদ্যুৎ ছাড়াই স্কুলের পঠন পাঠন চলছে। সাই কম্পিউটার সংস্থার এহেন কান্ডকারখানার পরও যদি সরকার খুব শীঘ্রই সাই কম্পিউটার সংস্থার বিরুদ্ধে কোনো ধরনের ভুমিকা না নেয় তাহলে রাজ্য সরকারেরই বদনাম বাড়বে বলে মহকুমাবাসীর অভিমত।

Related Articles

যোগাযোগ রেখো

82,829ভক্তমত
834অনুগামিবৃন্দঅনুসরণ করা
1,320গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব

সাম্প্রতিক প্রবন্ধসমূহ