18 C
Agartala
Monday, February 26, 2024
- Advertisemet -spot_img

একদিবসীয় বিজ্ঞান ভিওিক মাছ চাষের উপর সেমিনার

শ্যামলী ত্রিপুরা প্রতিনিধি, পানিসাগর, ৭ জুলাই।।৭ই জুলাই এগারো ঘটিকায় উওর জেলার পানিসাগর মৎস্য দপ্তরের ফিসিকালচার নলেজ সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় উওর জেলা মৎস্য উপ অধিকর্তার উদ্যোগে জাতীয় মৎস্য চাষি দিবস উদযাপন উপলক্ষে জেলা ভিওিক ।সেমিনারের শুরুতেই বৃক্ষে জল সেচনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ শুচনা করেন উওর জেলার এগ্রি স্ট্যান্ডিখ কমিটির চেয়ারম্যানসৌ কাজল দাস মহুদয়।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পানিসাগর পঞ্চায়েত সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান লক্ষিকান্ত দাস,উওর জেলার জেলা পরিষদ সদস্য বিকাশ শর্মা, উওর জেলার মৎস্য উপ অধিকর্তা বিজয় রায়,পানিসাগর মৎস্য দপ্তরের আধিকারিক গৌতম মজুমদার সহ অন্যান্য বিশিষ্ট জনেরা।স্বাগত আলোচনায় দিনটির তাৎপর্য নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা রাখেন জেলা উপ অধিকর্তা বিজয় রায়।পাশাপাশি মঞ্চে উপবিষ্ট সম্মানিত অতিথিরা একে একে আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন।সেমিনার অংশগ্রহণ করেন জেলার তিনটি ব্লক এলাকা থেকে আগত প্রায় শতাধিক মৎস্য চাষিগন।১৯৫৭ সালে ১০ জুলাই ভারতবর্ষের উড়িষ্যাতে বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ডঃ হীরালাল চৌধুরী সর্বপ্রথম ইনজেকশনের মাধ্যমে মাছের রেণু পোনা উৎপাদন করে মৎস বিজ্ঞানে একটা আমুল চমক এনেছিলেন।তাই উনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করতে গিয়ে সেই থেকে ১০ জুলাই জাতীয় মৎস্য চাষি দিবস হিসেবে উদযাপন করার প্রচলিত হয়।বিগত দিন গুলির ন্যায় এবারও জেলা থেকে মৎস্য চাষে সফলতার নিরিখে তিন জনকে প্রথম,দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পুরুস্কার প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহ প্রদান করা হয়।এরা হলেন যথাক্রমে যুবরাজনগর ব্লকের বিষ্ণুপদ দাস,উওর পদ্মবিল দুলাল দাস এবং লালজুরি ব্লকের শান্তিপুরের নির্মল নাথ।আসন্ন ১০ জুলাই আগর তলাতে রাজ্য ভিওিক জাতীয় মৎস্য চাষি দিবস উদযাপন কে কেন্দ্র করে সমগ্র রাজ্য জুরে মহকুমা এবং জেলা পর্যায়ের উদযাপন অগ্রিম সেরে নেওয়া হচ্ছে।সেমিনারকে কেন্দ্র করে আলোচনা রাখতে গিয়ে সম্মানিত অতিথিরা একে একে আধুনিক বিজ্ঞান সম্মত উপায়কে কাজে লাগিয়ে উন্নত প্রথায় বিভিন্ন প্রজাতির মৎস্য চাষে মনোনিবেশ করার আহবান জানান।কারন বর্তমান সভ্যতায় দাড়িয়ে একজন ব্যাক্তি নিজেকে আত্মনির্ভর করে তোলার একমাএ অবলম্বনই হলো মৎস্য চাষ।বিশেষ করে এিপুরার ক্ষেএে রয়েছে এই নিয়ে প্রতিকুল পরিবেশ।আমাদের রাজ্যের প্রায় ৯৫ শতাংশ মানুষ মৎস্য ভোগী।তাই আমাদের রাজ্যের এই বিশাল পরিমান মৎস্যের যোগানকে হাতিয়ার করে মহৎ চাষে অতি অল্প সময়ে নিজেদের অনায়াশেই সাবলম্বি করে তোলা সম্ভব।এতে করে মৎস্য দপ্তরের ঘোষনা অনুযায়ী ২০২৫ সালের মধ্যে বহিরাজ্য থেকে আমদানি কৃত বরফ যুক্ত মৎস থেকে পরিএান পাওয়ার লক্ষমাএা বাস্তবায়িত হবে।এর জন্য অবশ্যই রাজ্য মৎস্য দপ্তর কতৃক প্রত্যেক মৎস চাষিদের সরকারি সহায়তায় পুকুর খনন থেকে শুরু করে মাছের পোনা, মাছের খাদ্য ইত্যাদি সরবরাহ করা হচ্ছে।তাই মৎস্য চাষে সকলকে মনোনিবেশের মাধ্যমে নিজেকে স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে সেমিনারের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

Related Articles

যোগাযোগ রেখো

82,829ভক্তমত
834অনুগামিবৃন্দঅনুসরণ করা
1,320গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব

সাম্প্রতিক প্রবন্ধসমূহ